,

‎ভ্যাট‬ দিচ্ছ, ভেবে দিচ্ছ তো , কাকে দিচ্ছ?

2D_SpitBill

‪।।মারজিয়া প্রভা।।

‪‎ভ্যাট‬ দিচ্ছ, ভেবে দিচ্ছ তো , কাকে দিচ্ছ ?

শহরের বড় বড় দোকানপাট, রেস্টুরেন্টগুলাতে হেভি মাঞ্জা মেরে খেয়ে আসি, বিল বাবদ “ভ্যাট” সহ কারি কারি টাকা দেই, কিন্তু কখনও কি ভেবে দেখি যাদের ভ্যাট দিতেছি তারা আসলেই ভ্যাট অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান কি না !




ভ্যাট আবার অনুমোদন পাইতে হয় নাকি বস ? ১০০ টাকার আন্ডারগার্মেন্টস এর উপর ৩০ টাকা ভ্যাট মাইরে হাসি হাসি মুখ করে যখন কয় “ স্যার/ম্যাডাম আবার আসবেন”, তখন কি একবারও চেক করি, এই ত্যালত্যালা হাসি যে ভ্যাটের জন্য তা আসলেই ভ্যালিড কি না ? করি না বলেই, দেশে কয়দিন পরপর ব্যাঙের ছাতার মত রেস্টুরেন্ট উঠে, ভারিক্কি একটা নাম লটকায় দেয়, দেন রমরমা ব্যাবসা। খাবারের মান যাই হোক, বন্ধুদের নিয়ে সেলফি খিঁচতেই যাই, গিয়ে কয়েকগাদা টাকার ভ্যাট দিয়ে আসি, যা সরকারের “স” অব্দিও পৌছায় না, ওদের পকেটে চালান হয়। আহা ! কি ব্যবসা ! সুপারশপের ক্ষেত্রেও তা প্রযোজ্য।

‪#‎কেমনে‬ চেক করুম আসলেই ভ্যাট অনুমোদন কি না ?

চেক করতে তোমাকে একটা ইন্টারনেট সহ সেল ফোন লাগবে প্রথমে, বা ল্যাপটপ। কারণ রেস্তোরাঁয় তুমি ঢাউস পিসি নিয়া যাবা না।

যাই হোক, ভ্যাট দিতে হয় যেসব প্রতিষ্ঠানে তা এনবিআরভুক্ত প্রতিষ্ঠান হতে হয়। NBR ( National Board of Revenue) । এদের ওয়েবসাইট এড্রেসে গিয়ে, পাশে BIN Status বলে একটা ঘর আছে। ওয়েব এড্রেসঃ http://www.nbr.gov.bd/

তোমার হাতে যে বিল ধরায় দেয়, সেখানে VAT Reg বলে একটা টাইটেল থাকে, পাশে থাকবে একটা ১১ ডিজিটের নম্বর। মাইন্ড ইট, ১১ ডিজিটের নম্বর, ১০ হলে আগেই বাতিল। সেই ১১ ডিজিটের নাম্বার ওই BIN Status এর ঘরে put করবা।

‪#‎যদি‬ দেখ, নাম আসতেছে প্রতিষ্ঠানটার , ঠিকানা সহ, তাহলে ওকে, চুপচাপ ভ্যাট সহ বিল দিয়ে সেলফি খিঁচ।

‪#‎আর‬ যদি দেখ No result Found , তাহলে বিপত্তি। কাছের থানায় জানাও সোজা। ভ্যাট এক পয়সাও দিবা না, কারণ ওরা ভ্যাট পাওয়ার কোন অনুমোদন পায় নি।

‪#‎এছাড়াও‬ স্মার্ট ফোন ইউজারদের জন্য সহজ উপায় হচ্ছে, প্লেস্টোর থেকে Vat Registration Checker নামের দেড় মেগাবাইটের ছোট্ট এনড্রয়েড এপটি নামিয়ে নিলেই খুব সহজেই চেক করা যাবে। বুয়েটের সিইসি ডিপার্টমেন্টের Mohammed Hasanul Aziz Deep ও তার বন্ধুরা মিলে এটা তৈরি করেছে।

প্লেস্টোরের লিংকঃ https://play.google.com/store/apps/details…

————————————————————-

‪#অভিজ্ঞতাঃ‬

জাস্টিস ফর ওমেন বাংলাদেশের, শুভ ভাইয়া, গতকাল এইরকম কালপ্রিট এক প্রতিষ্ঠান, বেইলি রোডের “Golden food” কে অলরেডি ধরায় দিছে পুলিশের হাতে। ওদের ১০ ডিজিটের ভ্যাট রেজিঃ ছিল।



আমি এইসব দেইখা, আজকে আমাদের ঢাকার বিখ্যাত প্রিন্স বাজারের মেমো নিয়ে বসছিলাম। মোহাম্মদপুর শাখার প্রিন্স বাজারের ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন ১০ ডিজিটের দেখি। আবার শ্যামলী ব্রাঞ্চের ১১ ডিজিট , কিন্তু নো রেজাল্ট ফাউন্ড। মানে প্রিন্স বাজার যে এই ৪% ভ্যাট নিচ্ছে তা আসলে সরকার অনুমোদিত না, বেআইনি।

আমি খুব শীঘ্রই এটার বিরুদ্ধে আইনি স্টেপ নিব। কি ফলাফল তা যেন শীঘ্রই জানাতে পারি, সেই আশা রাখি।

সো হুদাই ভ্যাট দেওয়া বন্ধ করেন, কালপ্রিটদের ধরান। পুলিশের এখন এত সাধ্য নাই, সব রেস্তোরাঁয়, বা সুপারশপে গিয়ে চেক করবে। আমরা, আপনারা যাই, আমাদের পক্ষেই সোজা , এইসব বেআইনি প্রতিষ্ঠানদের চিহ্নিত করা।

হোক প্রতিবাদ, নিজ নিজ জায়গায়।

লেখক : মারজিয়া প্রভা

লেখক : মারজিয়া প্রভা

‘ফেসবুক কর্ণার এ প্রকাশিত লেখা প্রয়োজন২৪ এর নিজস্ব প্রতিবেদন নয়, ফেসবুক ব্যাবহার কারীদের মতামত।’

Share Button