,

ফ্লাইওভারের জন্য কাটা পড়ল শত শত গাছ, প্রতিবাদ নেই

ON-N-03-15-08-2015

।।তানভীর আহমেদ সিদ্দিকি।।

চট্টগ্রামের মুরাদপুর টু লালখানবাজার এর নির্মাধীন ফ্লাইওভার এর জন্য যে জায়গা নেয়া হয়েছে, সেখানে রোড ডিভাইডারের উপর শতাধিক ছোট-বড় গাছ আছে। কিছু গাছ উপড়ে ফেলা হয়েছে, কিছু গাছে শুধু কাদার আস্তরণ। কিছু ছোট গাছ প্রহর গুনছে মাটি থেকে তুলে কবে তাদের হত্যা করা হবে।

জ্বী, সারা দেশে প্রুতিদিন হাজার হাজার গাছে এভাবেই কাটা হচ্ছে । কই , সে সব নিয়ে তো লিখি না? তাহলে? জবাবটা দিতে চাই।

জিইসি থেকে দামপাড়া বাস কাউন্টার পর্যন্ত যে যুবক গাছ গুলো আছে সেই গাছগুলো আর আমার যৌবনপ্রাপ্তির সময়কাল প্রায় একই। ছোট বেলায় যতবার এই রোড দিয়ে যেতাম তখনকার সেই ছোট গাছগুলোকে দেখে কার্টুনে দেখা ক্রিসমাস ট্রি মনে হত। মনে হত সান্তা ক্লজ এসে কোনদিন সেই গাছ গুলো নিয়ে যাবে । বহুদিন চলে গেছে , সান্তা ক্লজ আসেনি , এসেছে সিডিএ কর্তৃপক্ষ । সেই গাছ গুলো আজ যুবক, আমারই মত। কিন্তু তারা আর বেঁচে থাকবে না। ঝরে যাবে , মরে যাবে অকালে।





প্রবর্তক মোড়ে ভার্সিটি বলে দামপাড়া থেকে লালখানবাজার পর্যন্ত ছোট ছোট গাছগুলো কে প্রতিদিনই দেখা হত। এখন হয় না, সবুজ টিনের প্রাচীর খুব সুকৌশলে ছোট্টগাছ গুলোকে আমার থেকে আড়াল করে রেখেছে। মনে হয় কি যেন নেই , কি যেন নেই। পকেটে অনেকক্ষন ধরে থাকা একটা টিস্যু ও ব্যবহারের পর ফেলে দিতে কষ্ট হয়। আর এরা ত গাছ, খুব জীবন্ত, খুব চেনা।

আজ ওখানের একজন কর্মকর্তাকে গিয়ে জিজ্ঞেস করেছিলাম , অন্য কোন স্থানে এই গাছ গুলোকে কি পুনরায় রোপন করা যায় না? তিনি শুধু বললেন, এরকম কোন পরিকল্পনার কথা তার জানা নাই। বলে তিনিও বিষন্ন দৃষ্টিতে চেয়ে রইলেন একটি ছোট্ট কাদামাখা ” ক্রিসমাস ট্রীর ” দিকে।

বড় ফাঁকা ফাঁকা লাগছে বুকের বাম দিকটাতে । ভালো থাকিস তোরা। নাগরিক জীবনের চাপে তোদের ভুলে যাবার আগে নিজেই সান্তা ক্লজের কাছে চলে যাস।

তানভীর আহমেদ সিদ্দিকি

তানভীর আহমেদ সিদ্দিকি

‘ফেসবুক কর্ণার এ প্রকাশিত লেখা প্রয়োজন২৪ এর নিজস্ব প্রতিবেদন নয়, ফেসবুক ব্যাবহার কারীদের মতামত।

Share Button